আমার সম্পর্কে

      নাম              মুহাম্মদ গোলাম মোর্শেদ (উজ্জ্বল)
      জন্ম স্থান      রাজবাড়ী,বাংলাদেশ
      জন্ম তারিখ  ১০ ফেব্রয়ারী ১৯৮০
অবস্থান প্যারিস, ফ্রান্স
আমার কিছু কথা নিজেকে বোঝার আগেই মনের মধ্যে একটা চেতনা তাড়া করে ফিরতো। এই ঘুণে ধরা সমাজ ব্যবস্থাকে বদলাতে হবে, একটা বিপ্লব দরকার। কিন্তু কিভাবে?বিপ্লবের হাতিয়ার কি? অনেক ভেবেছি। একদিন মনের মধ্যে উঁকি দিয়ে উঠলো একটি শব্দ, বিপ্লবের হাতিয়ার 'কলম'।তার পর সেই ১৯৯৭ সালে 'সাপ্তাহিক রাজবাড়ী কন্ঠ' পত্রিকায় মুক্ত সাংবাদিকতার মাধ্যমে লেখালেখির হাতেখড়ি।সাংবাদিকতার পাশাপাশী সাহিত্য চর্চার একটা ক্ষুদ্র প্রয়াসও ছিলো। নিজের লেখার মান নিজের কাছেই উত্তীর্ণ হতনা তবুও দারুন একটা প্রচেষ্টা ছিলো। সেই থেকে একটু একটু করে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চলছিলো। এরপর হিসাব শাস্ত্রে স্নাতকোত্তর শেষ করার পর টানা পাঁচ বছর একটি মুনাফাভোগী ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে হিসাব নিকাসের কাজ করে  রুটি রুজির ব্যবস্থা করেছি।আর ওখানেই ছেদ পরেছে জীবনের অনেক কিছু।যখন নিজের ভূখন্ড ছেড়ে চলে এলাম সুদূর ফ্রান্সে তখন থেকেই দেশের মানুষ,দেশের প্রকৃতির জন্য বুকের মধ্যে সবসময় একটা শূন্যতা অনুভব করি। আবার যখন দেখি দেশের ১৬ কোটি মানুষের ভাগ্য নিয়ে প্রতিনিয়ত তামাশা করে যাচ্ছে কতিপয় শিক্ষিত অমানুষ, তখন মনে হয় কলমে কালী না ঝড়িয়ে কলমের নিপ দিয়ে খোঁচা মেরে চিরতরে অন্ধ করে দেই ওদের লোলুপ চতুরতা ভরা চোখ।


ব্যক্তিগত জীবনে আমি এক কন্যা সন্তানের জনক। ওর নাম মিশেল মেহজাবিন

মোর্শেদ।

  

যে সংগঠনগুলোর সাথে জরিত ছিলাম
১.বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বি.এন.সি.সি),সুন্দরবন রেজিমেন্ট, পদবী: ক্যাডেট আন্ডার অফিসার(সি.ইউ.ও) (১৯৯৭-২০০৩) ,২.বাজবাড়ী সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ ২০০১-২০০২, পদবী: বার্ষিকী সম্পাদক(নির্বাচিত), ৩.উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী,কেন্দ্রীয় সংসদ ও রাজবাড়ী জেলা সংসদ, নাটক ও আবৃতি বিভাগ, ৪.রাজবাড়ী জেলা শিল্পকলা একাডেমী, নাটক বিভাগ, ৫.মৈত্রী থিয়েটার,রাজবাড়ী, ৬.বাংলাদেশ ছাত্র মৈত্রী,রাজবাড়ী জেলা শাখা।


 পত্রিকা      
১.সাপ্তাহিক রাজবাড়ী কন্ঠ,পদবী: ষ্টাফ রিপোর্টার, ২.সাপ্তাহিক তদন্ত প্রতিবেদন

আমার সম্পাদনা
"প্রয়াস", রাজবাড়ী সরকারি কলেজ বার্ষিকী ২০০৪